বাংলাদেশ ক্রিকেটের পোষ্টার বয় সাকিব আল হাসান।গত কয়েকদিন ধরেই তিনি টক অব দ্যা টাউন।গতকাল সাকিবের নিষেদ্ধ এর খবর গনমাধ্যমে আসে। জুয়াড়ির কাছ থেকে প্রস্তাব পাওয়ার পর তা না জানানোর অপরাধে বাংলাদেশ টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসানকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। তবে অভিযোগ স্বীকার করে নেওয়ায় দুই বছরের জন্য মধ্যে এক বছর থাকছে স্থগিত নিষেধাজ্ঞা।


বাংলাদেশ জাতীয় দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসানকে দুই বছরের জন্য সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে আইসিসি। তিনবার ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পেয়েও না জানানোয় তার বিরুদ্ধে এ শাস্তির ব্যবস্থা নিল বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রণ সংস্থা।


এ বিষয়ে বিসিবি মিডিয়া লাউঞ্জে পাপন বলেন, আমি সবসময়ে বলেছি দুইটা খেলোয়াড়ের মতো খেলোয়াড় কখনো পাব না। একজন সাকিব অন্যজন মাশরাফি। আসন্ন ভারত ম্যাচের সব পরিকল্পনা সাকিববে ঘিরে করা হয়েছিলো।

আমি এটা জেনে খুশি, সাকিব আইসিসিকে সমস্ত রকম সহযোগিতা করেছে। এটা কি চলছিলো আমরা কিছু জানতাম না। আমরা শুধু ফলাফলটা জানতে পেরেছি। সাকিবই প্রথম আমাকে বলেছে বিষয়টা ২ দিন আগে।

আমার মতে, আমাদের সবার সাকিবের পাশে থাকা উচিত। আমরা সবাই ওর পাশে আছি। বিসিবি সাকিবের পাশে থাকবে।


উল্লেখ্য,একজন অল-রাউন্ডার হওয়া সত্ত্বেও অক্টোবর,২০০৮ এর নিউজিল্যান্ডের বাংলাদেশ ট্যুরের আগ পর্যন্ত সাকিবকে বোলার নয়, ব্যাটসম্যান হিসেবেই গণ্য করা হত। টেস্টে সাত নম্বরে ব্যাটিংয়ে নামলেও ওয়ানডেতে কিন্তু প্রথম পাঁচ ব্যাটসম্যানের মধ্যেই থাকতেন তিনি। ট্যুরের আগ দিয়ে কোচ জিমি সিডন্স জানালেন, সাকিবকে স্পেশালিস্ট বোলার হিসেবেই টেস্ট সিরিজ খেলানো হবে। কোচকে হতাশ করেননি সাকিব

Sites