বাংলাদেশে বর্তমানে আলোচিত বিষয় হচ্ছে ই-কমার্স সাইট ইভ্যালির প্রতারণা অল্প টাকায় দামি পণ্য পাওয়ার লোভে পড়ে মানুষ এই ই-কমার্স সাইটে বিনিয়োগ করেছিল এবং এরপর থেকে এর প্রতারণা শুরু হয় এবং অনেকেই যারা বিপুল পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করেছিলেন এখানে তারা এখন সর্বস্বান্ত হয়েছে বলে অনেকেই এখন তাদের সেই টাকা ফিরে পাওয়ার দাবি জানাচ্ছে

বাংলাদেশে এখন কোন স্বপ্নবান তরুণ উদ্যোক্তা দেখলেই ভয় লাগে। ইভ্যালির রাসেল যে ক্ষতিটা করে গেল তা অপূরণীয়। তাহসান-মিথিলা ব্যক্তিগত জীবনের স্পর্শকাতর বিষয় নিয়ে লাইভে এসেছিলেন অকপট আলাপে। আপাত দৃষ্টিতে এটি শুনতে ভাল মনে হলেও এটি ছিল স্পন্সর্ড। ইভ্যালি এর পেছনে পঞ্চাশ লক্ষ টাকা স্পন্সর করেছিল।

এই টাকা সাধারণ গ্রাহকের। ইভ্যালি একটা সুতাও উৎপাদন করে না। শুধু অবিশ্বাস্য কম পয়সায় পণ্য দেবার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ব্যবসা করতে এসেছিলো। বাংলাদেশের তারকারা আধুনিক হয়েছেন। বিবাহ বিচ্ছেদকে সামাজিক ট্যাবুর বাইরে নিয়ে আসতে চেষ্টা করছেন। কিন্তু অতি ব্যক্তিগত সাংসারিক প্যাঁচালীকে যখন প্রকাশ্যে নির্লজ্জের মত পণ্য করে তোলে তখন সবটাই কেমন মেকি লাগে।

ই-কমার্স সাইট ইভ্যালি এর প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ রাসেল এর অর্থ আত্মসাতের কর্মকাণ্ড প্রকাশ্যে এসেছে এবং ব্যাপকভাবে সমালোচনা সৃষ্টি হয় এই ঘটনার পর থেকে এরইমধ্যে গ্রাহকরা তাদের পাওনা টাকার দাবিতে রাস্তায় নেমে আসে এবং দ্রুতই তারা তাদের পাওনা অর্থ দাবি করেন এরপর গ্রেফতার করা হয় রাসেলকে এবং তাকে রিমান্ডে নেওয়া হয় তেমনি গুরুত্বপূর্ণ নানান তথ্য দিয়েছেন এরই মধ্যে

Sites