কিশোরগঞ্জ-৬ (ভৈরব-কুলিয়ারচর) আসনের বিএনপি প্রার্থী বিএনপি’র কেন্দী্রয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপি মো. শরীফুল আলম পায়ে ব্যথা নিয়েই প্রচারণা শুরু করেছেন। পায়ে আঘাতের কারণে হাঁটতে না পারায় দলীয় নেতাকর্মীদের কাঁধে ভর দিয়ে গণসংযোগ করছেন। গত বুধবার সন্ধ্যায় কুলিয়ারচর উপজেলার চৌমুড়ী বাজারে নির্বাচনী পথসভায় পুলিশি হামলার পর পুলিশের লাঠিপেটায় পায়ে গুরুতর আঘাত পেয়েছিলেন মো. শরীফুল আলম। পুলিশের একটি দল অ্যাম্বুলেন্সযোগে সেখানে পৌঁছে সভাস্থলের পিছন থেকে নেতাকর্মীদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। লাঠিচার্জ করে তারা ছত্রভঙ্গ করে দেয় পথসভায় উপস্থিত নেতাকর্মী ও সমর্থকদের। এ পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার থেকে তিনি নির্বাচনী প্রচারণায় বের হতে পারছিলেন না। শনিবার তিনি নেতাকর্মীদের কাঁধে ভর দিয়ে সীমিতভাবে নির্বাচনী গণসংযোগ শুরু করেন। দুপুরে বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে কুলিয়ারচর উপজেলার রামদি ইউনিয়নের আগরপুর বাসস্ট্যান্ড ও আগরপুর বাজারে গণসংযোগ করেন।
পরবর্তীতে তিনি ছয়সূতী ইউনিয়নের দাড়িয়াকান্দি ও ছয়সূতী বাসস্ট্যান্ড এবং রড়ছয়সূতী চকবাজারে গণসংযোগ করেন। এছাড়া তিনি ছয়সূতী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হাই মাস্টারের পুত্র ইকবাল হোসেন এর নামাজে জানাজায় অংশ নেন। শরীফুল আলম গণসংযোগ করছেন এমন সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে সর্বস্তরের নারী-পুরুষ গণসংযোগস্থলে ভিড় করেন। এ সময় তিনি সমবেত জনতার কাছে তাঁকে নির্বাচনী কাজে বাঁধা দেয়া এবং দলীয় নেতাকর্মীসহ তাঁকে আহত করার বিচারের ভার মহান আল্লাহ ও দেশবাসীর উপর ছেড়ে দিয়ে সকলের কাছে দোয়া ও সহযোগিতা চান। তিনি ধানের শীষে ভোট দেয়ার অনুরোধ করেন। এছাড়া সন্ধ্যায় গোবরিয়া আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়নের পশ্চিম গোবরিয়া ও নামা কান্দার ২০ জন তরুণ মো. শরীফুল আলমের হাতে ধানের শীষ তুলে দিয়ে বিএনপিতে যোগদান করেন।

Sites