ভারতে এবার উত্তরপ্রদেশে বাধ্য বা প্রতারণার মাধ্যমে ধর্মান্তরের মাধ্যমে বিয়ের পরে নারীদের কিংবা পুরুষদের ধর্মান্তরকরণ করাতে বাধ্য করলে কারাদণ্ডের বিধান রেখেছে উত্তরপ্রদেশ। সেখানে বিয়ের পর নারীদের ধর্ম পরিবর্তন করাতে বাধ্য করার অভিযোগে একাধিক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ আর এরপর থেকেই বাড়ছে সেখানে ব্যাপক সমালোচনা এই কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে


বিয়ের পরে নারীদের ধর্ম পরিবর্তন করতে বাধ্য করার অভিযোগে ১০ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। ’লাভ জিহাদ’ নামে ভিনধর্মে বিয়েবিরোধী বিতর্কিত নতুন একটি আইনে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গত মাসে ভারতের প্রথম রাজ্য হিসেবে উত্তরপ্রদেশ বাধ্য বা প্রতারণার মাধ্যমে ধর্মান্তরের বিরুদ্ধে আইন পাস করে। কাউকে ধর্মান্তকরণ করতে বাধ্য করা কিংবা বিয়ের মাধ্যমে ধর্মান্তরিত হতে প্ররোচিত করলে ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডের বিধানও রয়েছে। সমালোচকরা বলছেন, এটা বিজেপি সরকারের মুসলিমবিরোধী এজেন্ডা।

আইনটিতে কোনো ধর্মের নাম না থাকলেও সমালোচকরা আইনটিকে মুসলিমবিদ্বেষী বলছে। দেশের হিন্দু নারীদের প্রেমের প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিভ্রান্ত করে বিয়ের পর ইসলাম ধর্মে ধর্মান্তরিত করার ষড়যন্ত্র হিসেবে বর্ণনা করে একে ’প্রেমের মাধ্যমে জিহাদ’ বা ’লাভ জিহাদ’ বলে অভিহিত করছে কট্টর হিন্দুত্ববাদী গোষ্ঠীগুলো।

দেশটির সবচেয়ে জনবহুল রাজ্য উত্তরপ্রদেশের কর্মকর্তারা অবশ্য এ প্রসঙ্গে বলছেন, এ আইন প্রতারণামূলক ধর্মান্তর রোধে সহায়তা করবে। বিশেষ করে তরুণীদের সুরক্ষার কথা ভেবেই আইনটি প্রণয়ন করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নেতৃত্বাধীন ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার ও উত্তরপ্রদেশ রাজ্য সরকার উভয় স্থানেই ক্ষমতায় রয়েছে কট্টর হিন্দুত্ববাদী দল হিসেবে পরিচিত ভারতীয় জনতা পার্টি বা বিজেপি।

চার জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, তাদের মেয়েদের মুসলিম পুরুষরা অপহরণ করেছে; বাবা-মায়ের এমন পৃথক অভিযোগের ভিত্তিতে গত সপ্তাহে উত্তরপ্রদেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এই ১০ জনকে গ্রেফতার করা হয়।

এক পুলিশ কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ’আমরা নতুন এই আইনে কেবল তাদেরই গ্রেফতার করছি, যাদের ক্ষেত্রে আমাদের কাছে প্রমাণ রয়েছে যে, এটি জোরপূর্বক ধর্মান্তরের একটি স্পষ্ট ঘটনা।’





ভারতে লাভ জিহাদ নামের একটি আইন পাস হয়েছে সেখানে ভিন্ন ধর্মের মানুষ কে বিয়ে করে ধর্মান্তরিত হওয়ার যে বিষয়টি সেখানে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে তবে আইনটিতে কোন ধর্মের নাম উল্লেখ না থাকলেও সমালোচকরা এটিকে মুসলিমবিদ্বেষী হিসেবেই দেখছে। এদিকে কট্টর হিন্দুত্ববাদী গোষ্ঠীগুলো প্রেমের মাধ্যমে জিহাদ বলে এই বিয়েকে অভিহিত করছে হিন্দু নারীদের প্রেমের প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিয়ের পর ইসলাম ধর্মে ধর্মান্তরিত করার ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে বলে তারা বলছে

Sites