সড়ক পথের অন্যতম বাহন মটরসাইকেল যদি নদীপথে ঠিক একইভাবে চলাচল করে তাহলে বিষয়টি কেমন দেখাবে? জ্বী, ঠিকই ধরেছেন। এমনটি সত্যিই অভিনব ব্যাপার হবে। আর এই অভিনব ব্যাপারটিই করে দেখিয়েছেন মো. সোহেল রানা (৩২)।
মটর সাইকেলের পুরনো বডি ব্যবহার করে দ্রুত গতিসম্পন্ন স্পীডবোট তৈরি করেছেন বরগুনা সদর উপজেলার ৬ নং বুড়িরচর ইউনিয়নের পূর্ব বুড়িরচর গ্রামের ফরিদ হাওলাদারের ছেলে সোহেল রানা।

ভিডিওটি-
পেশায় মটর মেকানিক সোহেল রানার তৈরি কৃত স্পীডবোট ৫/৭ জন যাত্রী নিয়ে ১ লিটার তৈল ব্যবহার করে নদী পথের প্রায় ১২ কিলোমিটার পথ পাড়ি দেয়া সম্ভব। সোহেল রানা এর আগেও বেশ কয়েক বারএরকম স্পীডবোট তৈরি করে পরীক্ষামূলক কার্যক্রম শুরু করেছিল। নানাবিধ কারণে বিগত দিনে তাঁর তৈরি করা স্পীড বোট আশা নুরূপ সাফল্যের মুখ দেখতে না পারলেও অবশেষে সফল হলেন সোহেল রানা।

অভিনব স্পীড বোটের আবিস্কারক মটর মেকানিক সোহেল রানা জানান, আমি খুব ছোট বেলা থেকেই ব্যতিক্রম কিছু করার জন্য চিন্তা-ভাবনা করতাম। কিন্তু পারিপার্শ্বিক অবস্থার কারণে খুব একটা কুলিয়ে উঠতে পারতামনা। সোহেল রানা আরও বলেন, এই স্পীডবোট তৈরি করতে গিয়ে বিভিন্ন মানুষের অনেক বাজে কথা শুনতে হয়েছে।

’কাম-কাজ না কইরা আমি নাকি অযথাই সময় নষ্ট করতাছি’ এ রকম অভিযোগ শুনতে হয়েছে এই গত দুই দিন আগে থেকেও। সফল ভাবে স্পীডবোটটি নদীতে চলাচলের পর থেকে অবশ্য ’বাজেকথা’ বলা লোকগুলো এখন সোহেল রানাকে ব্যাপক উৎসাহ দিয়ে যাচ্ছে!

স্পীডবোট তৈরি করতে গিয়ে অনেক সময় বিভিন্ন ধরণের পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন পড়তো। দিনের আলোয় এসব কাজ করতে গেলে লোকজনের মন্দ কথা শুনতে হবে বলে রাতের অন্ধকারেও কাজ করতে হয়েছে সোহেল রানাকে। অভিনব স্পীডবোটটি তৈরিতে সোহেল রানার খরচ হয়েছে প্রায় ৬০ হাজার টাকা। একজন মটর মেকানিকের পক্ষে ৬০ হাজার বিরাট অংকের অর্থ। দীর্ঘ পরিশ্রমের ফসল হিসেবে জমানো টাকা গুলো দিয়ে এরকম স্পীডবোট তৈরি করা রীতিমত দুঃসাহসী কতারকাজ সোহেল রানাদের মতো নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের পক্ষে।

সোহেল রানার সাথে আলাপকালে জানা যায়, তিনি এরকম অভিনব কাজ আরো করে দেখাতে চান। এমনকি এর থেকেও বেশি কিছু। সরকারি কিংবা বে-সরকারি প্রতিষ্ঠানের আর্থিক সহযোগিতা পেলে সোহেল রানা ’উড়ন্ত কিছুও’ তৈরি করে দেখাতে পারবেন বলে বেশ ’আত্মবিশ্বাসের’ সাথেই জানিয়েছেন তিনি।

প্রয়োজনে ০১৭৩৬৪৬০৯৩৯ নম্বরে যথাযথ খোঁজ-খবর নিয়ে এবং তাঁর (সোহেলরানা) ’ভাবনাগুলো’গ্রহণযোগ্য মনে হলেও যেন অন্তত কেউ এগিয়ে এসে তাকে সহযোগিতা করে এমনটাই প্রত্যাশা আত্মবিশ্বাসী মটর মেকানিক সোহেল রানার।

Sites