কাজল ভারতের অন্যতম সফল এবং সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত অভিনেত্রী। তিনি তার কর্মজীবনে বারটি ফিল্মফেয়ার পুরস্কার মনোনয়নের মধ্যে ছয়টি পুরস্কার জয় লাভ করেছেন।বলিউড তারকা কাজল যখন জনপ্রিয়তার তুঙ্গে, তখনই বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেন। সহশিল্পী অজয় দেবগনের সঙ্গে তিনি গাঁটছড়া বাঁধেন ১৯৯৯ সালে। বিয়ের আগে অজয়কে বন্ধুর তালিকাতেই ফেলে রেখেছিলেন কাজল। এমনকি তাঁর তৎকালীন প্রেমিকের মন গলানোর অনেক পরামর্শও নাকি নিতেন অজয়ের কাছ থেকে




কলকাতার মতো মুম্বাইয়েও ছড়িয়ে পড়েছে দুর্গাপূজার আনন্দ। পূজার আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে পূজা মণ্ডপে হাজির হচ্ছেন বলিউডের তারকারা। শুক্রবার ষষ্ঠীর দিন ঐতিহ্যবাহী সাজে বলিউডের অভিনেত্রী কাজল, তার মা তনুজা আর বোন তানিশাকে একসঙ্গে দেখা গেছে মুম্বাইয়ের এক পূজা মণ্ডপে।

ওইদিন কাজলের পরনে ছিল গোল্ডেন রঙের এব্রয়ডারির কাজসহ গর্জিয়াস লাল কুর্তি । সঙ্গে ছিল মানানসহ ওড়না আর প্রিন্টের পালাজ্জো ।

দেবী দূর্গার ওপর নিজের ভক্তির কথা জানিয়ে কাজল বলেন, ’ আমার স্বামীর পরিবারের সবাই দেবী দূর্গার ভক্ত। এ উৎসব আমরা পূর্ণ বিশ্বাস থেকেই উদযাপন করি।’

ওইদিন কাজলের বোন তানিশার পরনে ছিল গোলাপি রঙের বাঙালি শাড়ি। তিনি জানান, শাড়িটি তার মা তাকে গত বছর দুর্গা পূজা উপলক্ষ্যে উপহার দিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, ’ কর্মব্যস্ত জীবনে কোনো উৎসব হলেই পরিবারের সঙ্গে একত্রিত হই। পূজার সময়, অনেক লোককে ভোগ খাইয়ে আনন্দ পাই।’

পূজা মণ্ডপে দুই মেয়ের সঙ্গে ওইদিন দ্যুতি ছড়াচ্ছিলেন এক সময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী তনুজাও। তার পরনে ছিল হালকা রঙের প্রিন্টের শাড়ি। তনুজা বলেন , ’ দেশের টিকিয়ে রাখতে ঐতিহ্যগুলো ধরে রাখা জরুরি। দুর্গাপূজা এমন একটি উৎসব যা সবাইকে একত্রিত করে। এ উৎসবে সব ধর্মের মানুষই একত্রিত হতে পারেন।’

কাজল এরই মধ্যে ইনস্টাগ্রামে পুজার প্রথম দিন ষষ্ঠী ক্যাপশনে বেশ কয়েকটি ছবি পোস্ট করেছেন। ষষ্ঠীর সাজের ছবি পোস্ট করেছেন তানিশাও।

কাজলকে শেষ দেখা গিয়েছিল ’হেলিকপ্টার ইলা’ ছবিতে। তানিশা অবশ্য বহুদিন ধরেই ছবির জগত থেকে সরে এসেছেন। অন্যদিকে, তনুজাকে পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়ের পরিচালনায় ’সোনার পাহাড়’ ছবিতে দেখা গিয়েছিল।


উল্লেখ্য,পাঁচ বছর পর্দায় অনুপস্থিত থাকার পর কাজল সতেরতম বারের মত শাহরুখ খানের বিপরীতে প্রণয়ধর্মী হাস্যরসাত্মক দিলওয়ালে (২০১৫) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। রোহিত শেট্টি পরিচালিত ছবিটিতে আরও অভিনয় করেন বরুণ ধবন ও কৃতি শ্যানন।

Sites