বর্তমানে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সাবেক মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদের ঘটনায় উত্তপ্ত সোশ্যাল মিডিয়া গণমাধ্যম থেকে শুরু করে সব খানেই। আলোচিত এই ঘটনাটি বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে বেশ উদ্বেগ উত্কণ্ঠা তৈরি করে দিয়েছে। কি কারণে একজন নিরপরাধ ব্যক্তিকে এভাবে চলে যেতে হল সেটা নিয়ে ইতিমধ্যে প্রশ্ন উত্তর শুরু করেছে মানুষের মনে এবং সেইসাথে প্রশাসনের এমন কর্মকান্ড কে ধিক্কার জানাতে শুরু করেছে সাধারণ মানুষ

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সাবেক মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ এর ঘটনায় নতুন নতুন তথ্য সামনে আসছে।

তথ্যমতে, কক্সবাজারের টেকনাফ মেরিনড্রাইভে সেনা, পুলিশ ও বিজিবি’র তল্লাশি চৌকি রয়েছে। অন্যান্য চেকপোস্টের থেকে শামলাপুর পুলিশ চেকপোস্টটি একটু আলাদা। অন্য চেকপোস্টগুলো নির্জন জায়গায় হলেও এই চেকপোস্টটির পাশে বাজার, মসজিদ, লোকালয় রয়েছে।

৩১ জুলাই ঘটনার পরদিন ঈদের নামাজ পড়িয়ে গ্রামের বাড়ি যান ঘটনাস্থলের মসজিদের ইমাম। ছুটি শেষে ফেরার পর পরই তার সাথে কথা হয় গণমাধ্যমের। মসজিদের মোয়াজ্জিন এবং মাদ্রাসার কয়েকজন শিক্ষার্থী কী দেখেছিলেন জানান তিনি।

মসজিদের মোয়াজ্জিন বলেন, একজন ভদ্রলোক উপরে হাত তুললো। আমি ছাদ থেকে কথা শুনিনি, তবে মনে হলো ভদ্রলোক হাত উঁচু করে কিছু বলছেন। হঠাৎ করেই ৩টি গ’লি করা হলো। সেকেন্ড হবে না, একটার পর একটা গ’লি’ চালানো হলো।

প্রসঙ্গত,সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনেমা মোহাম্মদ রাশেদ এর ঘটনায় জড়িতদের ইতিমধ্যে আটক করা হয়েছে এবং তাদেরকে নিয়ে রীতিমতো আলোচনা শুরু হয়েছে সারাদেশে। জানা গেছে এই কর্মকাণ্ডের নেতৃত্ব দিয়েছিল ওসি প্রদীপ কুমার দাশ এবং এই সাথে জড়িত ছিল আরো বেশ কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা ইতিমধ্যে তাদেরকে নিয়ে তৈরি হয়েছে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা প্রশাসনের কর্মকর্তারা কিভাবে এমন কাজ ঘটাতে পারে সেটা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে সাধারণ মানুষের মনে

Sites